New Muslims APP

মানব জাতির মুক্তির উপায় ( ২য় পাঠ )

 

work.6278200.4.flat,550x550,075,f.climbing-red-rose[1]

আল্লাহ ব্যতীত অন্যের নামে কুরবানী করা :

আল্লাহর নামে ও তাঁর উদ্দেশ্যে কুরবানী না করে কোন পীরের নামে মাযারে বা অন্যত্র কুরবানী করা শিরক। অনুরূপভাবে আল্লাহর নামে না করে অন্যের নামে উট, গরু, মহিষ, ছাগল ইত্যাদি যবেহ করাও বড় শিরক। যেমন আল্লাহ বলেন, – ‘তুমি বলে দাও, আমার ছালাত, আমার কুরবানী, আমার জীবন ও আমার মরণ সবকিছু সারা জাহানের মালিক আল্লাহর জন্য। তাঁর কোন শরীক নেই, আমি এর জন্য আদিষ্ট হয়েছি। আর আত্মসর্মপণকারীদের (মুসলিমদের) মধ্যে আমিই হ’লাম প্রথম’ (আনআম ১৬২-১৬৩)। এ আয়াত থেকে প্রমাণিত হচ্ছে যে, আল্লাহ ব্যতীত অন্যের জন্য যবেহ করা বড় শিরক।)শায়খ আব্দুল্লাহ সুলায়মান, তাইসীরুল আযীযিল হামীদ, পৃঃ ১৫২] ইমাম আবু হানীফা (রহঃ) ও তাঁর অনুসারীগণ অন্যের জন্য কুরবানী করাকে বড় শিরক বলেছেন।[তুহফাতুল ফুকাহা ৩/৬৭ পৃঃ; উছূলুদ্দীন পৃঃ ২৬০। ]

আল্লাহ তা‘আলা বলেন,   ‘অতএব তুমি তোমার প্রভুর জন্য ছালাত পড় ও কুরবানী কর’ (কাওছার ২)। এ আয়াত দ্বারা প্রতীয়মান হয় যে, ছালাত এবং কুরবানী দু’টিই ইবাদত। আর ইবাদত শুধুমাত্র আল্লাহর জন্যই করতে হবে। আল্লাহ ব্যতীত তা অন্যের জন্য করলেই শিরক হবে। আল্লাহকে বাদ দিয়ে অন্যের নামে অর্থাৎ কোন পীর, ছূফী, অলী-আওলিয়ার নামে বা তাদের জন্য কুরবানী করলে আল্লাহ তাকে অভিশাপ দেন। যেমন নবী করীম (ছাঃ) এরশাদ করেন, – ‘যে ব্যক্তি আল্লাহকে বাদ দিয়ে অন্যের জন্য যবেহ করে, আল্লাহ তাকে অভিশাপ দেন। যে ব্যক্তি কোন বিদ‘আতীকে আশ্রয় দেয়, আল্লাহ তাকে অভিশাপ দেন। যে ব্যক্তি যমীনের সীমানা পরিবর্তন করে ফেলে, আল্লাহ তাকে অভিশাপ দেন’।[ ছহীহ মুসলিম হা/১৯৭৮

উপরোক্ত হাদীছ থেকে বুঝা যাচ্ছে যে, পীরের নামে যবেহ করলে শিরক হবে। এজন্যই আল্লাহ তা‘আলা অন্যের নামে যবেহকারীর উপর অভিশাপ করেছেন। আর আল্লাহর অভিশাপ দেওয়ার অর্থ হচ্ছে তাঁর রহমত থেকে বঞ্চিত হওয়া এবং তার ইহকাল-পরকাল উভয়ই ধ্বংস হওয়া। তাই আমাদের সবাইকে শিরকের অভিশাপ এবং আল্লাহর লা‘নত থেকে বেঁচে থাকতে হবে।

. আল্লাহ ব্যতীত অন্যের জন্য মানত করা শিরক হবে।: মানত একটি ইবাদত। সুতরাং আল্লাহ ব্যতীত অন্য কারো নামে মানত করা যাবে না। অন্যের নামে মানত করলে শিরক হবে। তাই মানত কেবল আল্লাহর জন্যই করতে হবে। যেমন আল্লাহ বলেন,  – ‘তারা মানত পূর্ণ করে এবং সেদিনের ভয় করে, যেদিনের অনিষ্টতা হবে ব্যাপক’ (দাহর ৭)

এ আয়াতটিতে আল্লাহ তা‘আলা মানত পূর্ণকারীদের প্রশংসা করেছেন। আর যেহেতু মানত ইবাদত, সেহেতু কেউ অন্যের নৈকট্য অর্জনের জন্য তা করলে সেটা শিরক হবে।[ তাইসীরুল আযীযিল হামীদ, পৃঃ ১৬১।] আল্লাহ তা‘আলা আরো বলেন, – ‘আর যে কোন বস্ত্ত তোমরা ব্যয় কর না কেন, অথবা যেকোন নযর তোমরা গ্রহণ কর না কেন, আল্লাহ নিশ্চয়ই তা অবগত হন। আর অত্যাচারীদের কোনই সাহায্যকারী নেই’ (বাক্বারাহ ২৭০)।  আমরা যে সমস্ত টাকা-পয়সা ব্যয় করি এবং আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের জন্য যে কোন মানত করি সবই তিনি জানেন ও এর প্রতিদান দেন। সুতরাং মানত কেবল তাঁর জন্যই হ’তে হবে। অন্যের জন্য করাই শিরক। আর আল্লাহর জন্য নযর করলে তা পূরণ করতে হবে এবং অন্যের জন্য করলে তা পরিত্যাগ করতে হবে।

আয়েশা (রাঃ) হ’তে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী করীম (ছাঃ) বলেছেন, – ‘যে লোক আল্লাহর আনুগত্য করার মানত করে সে যেন তাঁর আনুগত্য করে। আর যে লোক আল্লাহর অবাধ্যতা করার মানত করে সে যেন তাঁর অবাধ্যতা না করে’।[ বুখারী হা/৬৭০০] উপরের আলোচনা থেকে প্রমাণিত হয় যে, মানত হচ্ছে ইবাদত। আর ইবাদত শুধু আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্যই করতে হবে। কোন সৎকাজের মানত করলে তা পূরণ করতে হবে এবং অন্যায় কাজে ও আল্লাহ ব্যতীত অন্যের নামে মানত করলে তা পরিত্যাগ করতে হবে। আর মানত ভঙ্গের জন্য কাফফারা আদায় করতে হবে। মানতের কাফফারা কসম ভঙ্গের কাফফারার ন্যায়।[মুসলিম, মিশকাত হা/৩৪২৯ ] আর তা হচ্ছে ১০ জন ‘মসকিনকে খাদ্য অথবা বস্ত্র’ প্রদান করা অথবা একজন দাস বা দাসী মুক্ত করা। সামর্থ্য না থাকলে ৩দিন ছিয়াম পালন করা (মায়েদাহ ৮৯)

৩. আল্লাহ ব্যতীত অন্যের নিকটে সাহায্য চাওয়া : যে কোন বিষয়ে সাহায্য আল্লাহর নিকটই চাইতে হবে। কোন মানুষ, পীর, মাযার বা কবরের নিকট নয়। আল্লাহ তা‘আলা বলেন,   ‘আমরা শুধুমাত্র আপনারই ইবাদত করি এবং আপনারই নিকট সাহায্য প্রার্থনা করি’ (ফাতিহা ১/৪)

মহান আল্লাহ অন্যত্র বলেন,   ‘স্মরণ কর, যখন তোমরা তোমাদের প্রতিপালকের নিকট সাহায্যের আবেদন করেছিলে, আর তিনি সেই আবেদন কবুল করেছিলেন (আর তিনি বলেছিলেন), আমি তোমাদেরকে এক হাযার ফেরেশতা দ্বারা সাহায্য করব, যারা ধারাবাহিকভাবে আসবে’ (আনফাল ৮/৯)। তিনি আরো বলেন, ‘শয়তানের কুমন্ত্রণা যদি তোমাকে প্ররোচিত করে তবে তুমি আল্লাহর আশ্রয় প্রার্থনা কর, তিনি সর্বশ্রোতা ও সর্বজ্ঞ’ (রাফ ২০০)

অপর আয়াতে আল্লাহ তা‘আলা জীনদের কাছে সাহায্য চাইতে নিষেধ করেছেন। আল্লাহ তা‘আলা বলেন,

 ‘আর কতিপয় মানুষ কতক জিনের আশ্রয় প্রার্থনা করত, ফলে তারা নিজেদের সীমালংঘন আরো বাড়িয়ে দিয়েছে’ (জিন ৬)।   আল্লাহর নিকটে সাহায্য চাওয়ার নির্দেশ দিয়ে নবী করীম (ছাঃ) বলেন,-‘যখন তুমি কিছু চাইবে তখন আল্লাহর কাছে চাইবে। আর যখন সাহায্য চাইবে তখন আল্লাহর কাছে সাহায্য চাইবে’।[তিরমিযী হা/২৫১৬ ]

কুরআনের উল্লিখিত আয়াত ও হাদীছ থেকে বুঝা যায় যে, সাহায্য ও আশ্রয় চাওয়া একটি ইবাদত। বিধায় তা আল্লাহর নিকটই চাইতে হবে। অন্যের নিকট সাহায্য চাওয়া শিরক। উল্লেখ্য, সৃষ্টিজীবের নিকট সাহায্য চাওয়াটা দু’প্রকার- (১) এমন সাহায্য-সহযোগিতা যা করার মত মানুষের ক্ষমতা আছে, সেটা যায়েজ। যেমন আল্লাহ তাআলা বলেন, – ‘তিনি বললেন, আমার প্রতিপালক আমাকে যে ক্ষমতা দিয়েছেন তাই উৎকৃষ্ট, সুতরাং তোমরা আমাকে শ্রম দ্বারা সাহায্য কর, আমি তোমাদের ও তাদের মধ্যস্থলে এক মযবুত প্রাচীর গড়ে দিব’ (ক্বাহফ ৯৫)

আল্লাহ তা‘আলা ভাল কাজে সাহায্য করতে বলেছেন,-‘তোমরা আল্লাহভীতি ও নেকীর কাজে পরস্পরকে সাহায্য কর এবং পাপ ও অবাধ্যতার কাজে পরস্পরকে সাহায্য কর না’ (মায়েদাহ ২)। অতএব মানুষের ক্ষমতার মধ্যে থাকলে মানুষের কাছে সাহায্য চাওয়া যাবে। যেমন কারো নিকট টাকা ঋণ চাওয়া, কারো নিকট পানি চাওয়া ইত্যাদি।

(২) যা মানুষের ক্ষমতার বাইরে সে বিষয়ে মানুষের নিকট সাহায্য চাওয়া হলে শিরক হবে। যেমন কেউ যদি মৃত পীরের নিকট সাহায্য চায় এভাবে যে, আমাকে বিপদ থেকে উদ্ধার কর; আমাকে সন্তান দান কর; আমি ডুবে যাচ্ছি রক্ষা কর; বৃষ্টি দাও ইত্যাদি। এসব যেকোন মানুষের নিকট চাইলে বড় শিরক হবে। কেননা এসব মানুষের সাধ্যের বাইরে।

অনুরূপ মানুষের নিকট আশ্রয় চাওয়াও দু’প্রকার। যথা- (ক) এমন আশ্রয় চাওয়া যা মানুষের ক্ষমতার মধ্যে সেটা যায়েজ। যেমন যুদ্ধের ময়দানে সাহায্যের জন্য অন্যকে বলা যাতে তাকে শত্রুর বিরুদ্ধে সাহায্য করা হয়। যেমন আল্লাহ বলেন, ‘মূসার দলের লোকটি তার শত্রুর বিরুদ্ধে তাঁর সাহায্য প্রার্থনা করল’ (ক্বাছাছ ১৫)

(খ) এমন আশ্রয় চাওয়া, যার ক্ষমতা তার নেই, সেটা শিরক। যেমন অনেকে মাযারে গিয়ে পীরের নিকট আশ্রয় চায়, যা তার ক্ষমতার বাইরে। এরূপ আশ্রয় চাওয়া শিরক। -মোদ্দাকথা সমস্ত সাহায্য-সহযোগিতা আল্লাহর নিকটই চাইতে হবে। কিন্তু আমাদের দেশের অনেক মানুষ পীরের নিকট সাহায্য চায়। সুস্থতার জন্য, ধনী হবার জন্য প্রার্থনা করে, পীরের নিকট মানত করে, পীরকে সিজদা করে। এসবই শিরক।[ শাহ ওয়ালী উল্লাহ দেহলভী, হুজ্জাতুল্লাহিল বালেগাহ ১/১১৫-১৬

৪. আল্লাহ ব্যতীত অন্যের নিকট প্রার্থনা বা দোআ করা শিরক :     আল্লাহ তা‘আলা বলেন,  

‘আর আল্লাহকে ছেড়ে এমন কিছুকে আহবান করো না, যা না তোমার কোন উপকার করতে পারে, না কোন ক্ষতি করতে পারে। বস্ত্ততঃ যদি এরূপ কর তবে তুমি এমতাবস্থায় যালিমদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবে। যদি আল্লাহ তোমাকে কোন কষ্টে নিপতিত করেন, তবে তিনি ছাড়া কেউ তা মোচনকারী নেই। আর আল্লাহ যদি তোমার মঙ্গল চান, তবে তাঁর অনুগ্রহ রদ করার কেউ নেই। তাঁর বান্দাদের মধ্যে যাকে ইচ্ছা মঙ্গল দান করেন। তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু’ (ইউনুস ১০৬-১০৭)।   আল্লাহ তাআলা অন্যত্র বলেন,  ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর সাথে ডাকে অন্য ইলাহকে যে বিষয়ে তার নিকট কোন প্রমাণ নেই; তার হিসাব তার প্রতিপালকের নিকট আছে, নিশ্চয়ই কাফিররা সফলকাম হবে না’ (মুমিনূন ১১৭)। আল্লাহর সাথে অন্য কাউকে ডাকা এবং অন্যের সাহায্য ও আশ্রয় চাওয়া বড় শিরক।[তাইসীরুল আযীযিল হামীদ পৃঃ ১৯৫। ]

ইমাম আবু হানীফা (রহঃ) এবং তাঁর কিছু সাথী বলেন, আল্লাহর সাথে অন্য কাউকে ডাকা এবং অন্যের জন্য মানত করা, অন্যের জন্য যবেহ করা, অন্যের নিকট সাহায্য চাওয়া এবং আল্লাহকে ব্যতীত অন্যকে সিজদা করা সবই বড় শিরক।[উছূলুদ দ্বীন, পৃঃ ২৬০। ]

আল্লাহকে বাদ দিয়ে যাদেরকে ডাকা হয় ক্বিয়ামতের দিন তারা তা অস্বীকার করবে। যেমন আল্লাহ বলেন,  ‘তোমরা তাদেরকে আহবান করলে তারা তোমাদের আহবান শুনবে না এবং শুনলেও তোমাদের আহবানে সাড়া দিবে না। তোমরা তাদেরকে যে শরীক করেছ, তা তারা ক্বিয়ামতের দিন অস্বীকার করবে’ (ফাতির ১৪)

আল্লাহকে বাদ দিয়ে যাদের ডাকা হয় তারা মানুষের কোন উপকার করতে পারবে না। যেমন আল্লাহ বলেন,

 ‘আর তোমরা আল্লাহর পরিবর্তে যাদেরকে ডাকো তারা তো খেজুরের অাঁটির সামান্য আবরণেরও অধিকারী নয়’ (ফাতির ১৩)। তিনি আরো বলেন, ‘তার চেয়ে অধিক বিভ্রান্ত কে হবে যে আল্লাহ ব্যতীত এমন কাউকে ডাকে যারা ক্বিয়ামত দিবস পর্যন্ত তার ডাকে সাড়া দিবে না এবং তারা তাদের আহবান সম্বন্ধেও অনবহিত? আর যখন মানুষকে একত্রিত করা হবে তখন তারা তাদের শত্রু হবে এবং তারা যে তাদের ইবাদত করেছিল তা অস্বীকার করবে’ (আহক্বাফ ৫-৬)

আল্লাহর সাথে বা তিনি ব্যতীত অন্য কাউকে ডাকলে, অন্যের কাছে প্রার্থনা করলে বড় শিরক হবে। দুনিয়াতে যাদেরকে ডাকা হয়েছে কিয়ামতের দিন তারা তা অস্বীকার করবে। আর তারা কোন উপকারও করতে পারবে না। এমনকি আল্লাহর সাথে শিরক করার কারণে তাদের ছালাত, ছিয়াম, হজ্জ, যাকাতসহ সব আমল নষ্ট হয়ে যাবে এবং তারা চিরস্থায়ী জাহান্নামী হবে। তাই আমাদের সবার উচিত এসব শিরক থেকে বেঁচে থাকা।

জীবিত মানুষের জন্য মৃত মানুষের করার কিছু থাকে না; বরং জীবিতরা মৃতদেরকে কিছু দিতে পারে। যেমন তার জন্য আল্লাহর নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করতে পারে। তার জন্য দান-ছাদাক্বা ও হজ্জ করতে পারে। এসবের বিনিময়ে কবরে বসেও সে ছওয়াব লাভ করবে। কিন্তু মৃতব্যক্তি জীবিতদের কোন উপকার করতে পারে না। এমনকি তার নিকট থেকে মাছি কিছু ছিনিয়ে নিয়ে গেলেও সে তা রক্ষা করতে পারবে না। অনুরূপভাবে সমস্ত মৃত মানুষ একত্রিত হয়ে যদি কারো উপকার বা অপকার করতে চায়, তা কখনই পারবে না। মহান আল্লাহ তা‘আলা বলেন,   ‘হে লোক সকল! একটি উপমা দেয়া হচ্ছে, মনোযোগ সহকারে তা শ্রবণ কর, তোমরা আল্লাহর পরিবর্তে যাদেরকে ডাকো তারা তো কখনো একটি মাছিও সৃষ্টি করতে পারবে না, এই উদ্দেশ্যে তারা সবাই একত্রিত হ’লেও এবং মাছি যদি সবকিছু ছিনিয়ে নিয়ে যায় তাদের নিকট হ’তে, এটাও তারা ওর নিকট হ’তে উদ্ধার করতে পারবে না, পূজারী ও দেবতা কতই না দুর্বল’ (হাজ্জ ৭৩)।প্রকৃত উপাস্য কেবল মহান আল্লাহ। সুতরাং তাঁকেই ডাকতে হবে। আর অন্য সকল মা‘বূদ বাতিল। যেমন আল্লাহ তা‘আলা বলেন, ‘এজন্যও যে, আল্লাহ, তিনিই সত্য এবং তাঁর পরিবর্তে তারা যাকে ডাকে ওটা তো অসত্য (বাতিল)’ (হজ্জ ৬২)

মানুষ বিপদে পড়লে একনিষ্ঠভাবে আল্লাহকে ডাকে। বিপদ থেকে মুক্তি পেলে আল্লাহর সাথে শিরক করে। যেমন আল্লাহ বলেন, ‘তারা যখন নৌযানে আরোহণ করে তখন তারা বিশুদ্ধচিত্ত হয়ে একনিষ্ঠভাবে আল্লাহকে ডাকে; অতঃপর তিনি যখন স্থলে ভিড়িয়ে তাদেরকে উদ্ধার করেন, তখন তারা শিরকে লিপ্ত হয়’ (আনকাবূত ৬৫)

তিনি আরো বলেন,

‘যখন তরঙ্গ তাদেরকে আচ্ছন্ন করে মেঘছায়ার মত তখন তারা আল্লাহকে ডাকে বিশুদ্ধ চিত্ত হয়ে। কিন্তু যখন তিনি তাদেরকে উদ্ধার করে স্থলে পৌঁছান তখন তাদের কেউ কেউ মাঝামাঝি স্থানে অবস্থান করে আর বিশ্বাসঘাতক, অকৃতজ্ঞ ব্যক্তিই তাঁর নিদর্শনাবলী অস্বীকার করে’ (লোক্বমান ৩২)

আল্লামা ইবনে তাইমিয়াহ (রহঃ) বলেন, ফেরেশতা, নবী-রাসূল অথবা নেক্কার ব্যক্তিদের মৃত্যুর পর তাদের কবরের নিকট গিয়ে তাদেরকে ডাকা সবচেয়ে বড় শিরক, যেটা মুশরিক-ইহুদী-নাছারাদের মধ্যে বিদ্যমান। তাদের মধ্যে থেকেই এ শিরকী কার্য মুসলমানদের মধ্যে প্রবেশ করেছে। মহান আল্লাহ তা‘আলা বলেন,  ‘তাদের কি এমন কতকগুলো শরীকও আছে যারা তাদের জন্য দ্বীনের এমন বিধান প্রবর্তন করেছে যার অনুমতি আল্লাহ দেননি’? (শূরা ২১)

যে ব্যক্তি কোন নবী-রাসূল এবং ওলী-আওলিয়াকে মৃত্যুর পর ডাকবে এবং তাদের প্রয়োজন মিটানোর জন্য সাহায্য-সহযোগিতা চাইবে, সে অবশ্যই সব থেকে বড় শিরক করবে। এ ধরনের লোকদেরকে মহান আল্লাহ তা‘আলা মুশরিক হিসাবে অবহিত করেছেন। কেননা তারা তাদের ওলী-আওলিয়াদের নিকট শাফা‘আত চাইত। তাদেরকে অসীলা হিসাবে গ্রহণ করত। তাদেরকে কল্যাণ-অকল্যাণের মালিক মনে করত ও তাদের উপর আশা-ভরসা করত। সাথে সাথে তাদেরকে আল্লাহর নৈকট্য লাভের মাধ্যম হিসাবে গ্রহণ করত। মহান আল্লাহ বলেন‘আর তারা আল্লাহ ছাড়া এমন বস্ত্তসমূহেরও ইবাদত করে যারা তাদের কোন অপকারও করতে পারে না এবং তাদের কোন উপকারও করতে পারে না। আর তারা বলে, এরা হচ্ছে আল্লাহর নিকট আমাদের সুফারিশকারী’ (ইউনুস ১৮) অতএব যে ব্যক্তি কোন নবী-রাসূল এবং ওলী-আওলিয়াকে ডাকবে এবং তাদেরকে আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের মাধ্যম বানাবে, তাদের উপর আশা-ভরসা করবে, তাদের কল্যাণ ও অকল্যাণের মালিক মনে করবে, সে মুশরিক হয়ে যাবে।[ছিয়ানাতুল ইনসান, পৃঃ ১/৩৩৭। ]

৫. আল্লাহ ব্যতীত অন্যকে ভয় করা : কোন মুমিন ব্যক্তির উচিত নয় যে, আল্লাহকে বাদ দিয়ে অন্য কাউকে প্রকাশ্য ও গোপনে ভয় করা। বরং সে কেবল আল্লাহকেই ভয় করবে। যেমন মহান আল্লাহ তা‘আলা বলেন,

  ‘তোমরা মানুষকে ভয় করো না, আমাকেই ভয় কর’ (মায়েদাহ ৪৪)। তিনি আরো বলেন,  ‘তোমরা শুধু আমাকেই ভয় কর’ (বাক্বারাহ ৪০, ৪১)। কোন সৃষ্টি জীবকে কোন কারণ ছাড়া ভয় করা যাবে না, যেমন আল্লাহ তা‘আলা ইবরাহীম (আঃ) সম্পর্কে বলেন, ‘তোমরা আল্লাহর সাথে যা কিছু শরীক করছ আমি ওটাকে ভয় করি না, তবে যদি আমার প্রতিপালক কিছু চান। প্রতিটি বস্ত্ত সম্পর্কে আমার  প্রতিপালকের জ্ঞান খুবই ব্যাপক। এর পরও কি তোমরা উপদেশ গ্রহণ করবে না? তোমাদের মনগড়া ও বানানো শরীকদেরকে আমি কিরূপে ভয় করতে পারি? অথচ তোমরা এই ভয় করছ না যে, আল্লাহর সাথে যাদেরকে তোমরা শরীক করছ, তাদের ব্যাপারে আল্লাহ তোমাদের কাছে কোন দলীল প্রমাণ অবতীর্ণ করেননি। আমাদের দুই দলের মধ্যে যারা অধিক শান্তি ও নিরাপত্তা লাভের অধিকারী যদি তোমাদের জানা থাকে, তবে বলতো’? (আনআম ৮০-৮১)

আল্লাহ তা‘আলা হূদ এবং তাঁর সম্প্রদায় সম্পর্কে বলেন, ‘আমাদের কথা তো এই যে, আমাদের উপাস্য দেবতাদের মধ্যে হ’তে কেউ তোমাকে দুর্দশায় ফেলে দিয়েছে। তিনি বললেন, আমি আল্লাহকে সাক্ষী করছি এবং তোমরাও সাক্ষী থেকো, আমি ঐসব কিছু থেকে মুক্ত যাদেরকে তোমরা শরীক সাব্যস্ত করছ তাঁকে ছেড়ে। অনন্তর তোমরা সবাই মিলে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চালাও, অতঃপর আমাকে সামান্য অবকাশও দিয়ো না’ (হূদ ৫৪-৫৫)

আল্লাহ তা‘আলা রাসূল (ছাঃ)-কে সম্বোধন করে বলেন, ‘আল্লাহ কি তাঁর বান্দার জন্য যথেষ্ট নন? অথচ তারা তোমাকে আল্লাহর পরিবর্তে অপরের ভয় দেখায়। আল্লাহ যাকে পথভ্রষ্ট করেন তার জন্য কোন পথ প্রদর্শক নেই’ (যুমার ৩৬)

এ ভয়ের উদাহরণ দিয়ে আল্লাহ বলেন, ‘আল্লাহ তোমাদের জন্য তোমাদের নিজেদের মধ্যে একটি দৃষ্টান্ত পেশ করেছেন, তোমাদেরকে আমি যে, রিযিক দিয়েছি তোমাদের অধিকারভুক্ত দাস-দাসীদের কেউ কি তাতে অংশীদার? বরং তোমরা তাতে সমপর্যায়ের অথচ তোমরা কি তাদেরকে  সেরূপ ভয় কর যেরূপ তোমরা পরস্পরকে ভয় কর? এভাবেই আমি বোধশক্তি সম্পন্ন সম্প্রদায়ের জন্য নিদর্শনাবলী বিবৃত করি’ (রূম ২৮)

উল্লিখিত আয়াতগুলো দ্বারা প্রতীয়মান হয় যে, গোপন ও প্রকাশ্যে কেবল আল্লাহকেই ভয় করতে হবে, অন্যকে নয়।

আমাদের সমাজে এমনও মানুষ আছে, যারা শুধু মানুষের ভয়ে সৎ কাজের আদেশ এবং অসৎ কাজ থেকে নিষেধ করা হ’তে বিরত থাকে। এ ধরনের ভয় করা হারাম এবং এক প্রকার শিরক। যেমন আল্লাহ তা‘আলা বলেন, ‘যাদের লোকেরা বলেছিল, নিশ্চয়ই তোমাদের বিরুদ্ধে লোকজন সমবেত হয়েছে, অতএব তোমরা তাদেরকে ভয় কর। কিন্তু এতে তাদের বিশ্বাস আরো পরিবর্ধিত হয়েছিল এবং তারা বলেছিল আল্লাহই আমাদের জন্য যথেষ্ট এবং মঙ্গলময় কর্মবিধায়ক’ (আলে ইমরান ১৭৩)

ইবনে আববাস (রাঃ) হ’তে বর্ণিত, ইবরাহীম (আঃ) বলেছিলেন, যখন লোকেরা বলল, নিশ্চয়ই তোমাদের বিরুদ্ধে কাফিররা বিরাট সাজ-সরঞ্জামের সমাবেশ করেছে, সুতরাং তোমরা তাদের ভয় কর। একথা তাদের ঈমানের তেজ বাড়িয়ে দিল এবং তারা বলল, আমাদের জন্য আল্লাহই যথেষ্ট এবং তিনিই উত্তম কার্যনির্বাহক।[বুখারী হা/৪৫৬৩।  ]

ইবনে আববাস (রাঃ) হ’তে বর্ণিত, তিনি বলেন,  ‘ইবরাহীম (আঃ) যখন আগুনে নিক্ষপ্ত হয়েছিলেন তখন তাঁর শেষ কথা ছিল, আল্লাহই যথেষ্ট, তিনি কতই না উত্তম কর্মবিধায়ক’।[বুখারী হা/৪৫৬৪ ]

আল্লাহ তা‘আলা বলেন, ‘আল্লাহ মুমিনদেরকে নির্দেশ দিয়েছেন তাঁকে ব্যতীত অন্যকে ভয় না করার। নিশ্চয়ই এই হচ্ছে তোমাদের সেই শয়তান যে তার অনুসারীগণকে ভয় প্রদর্শন করে, কিন্তু যদি তোমরা বিশ্বাসী হও, তবে তাদেরকে ভয় করো না এবং আমাকেই ভয় কর’ (আলে ইমরান ৭৫)

অতএব আল্লাহকে ভয় করা এবং পরকালের শাস্তির ভয় করা, এ উভয়ই হচ্ছে প্রশংসিত ভয়। যেমন আল্লাহ বলেন,‘আর যে ব্যক্তি আল্লাহর সামনে উপস্থিত হওয়ার ভয় রাখে, তার জন্য রয়েছে দু’টি বাগান’ (আর-রহমান ৪৬)। তবে আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হওয়া যাবে না।

মোট কথা স্বভাব গত ভয় করতে কোন অসুবিধা নেই। যেমন শুত্রুর ভয়, সাপ বিচ্ছুর ভয়, ডুবে যাওয়ার ও ধ্বংস হয়ে যাওয়ার ভয় ইত্যাদি। যেমন মূসা (আঃ) সম্পর্কে আল্লাহ বলেন, ‘ভীত-সন্ত্রস্ত অবস্থায় তিনি তথা (মিসর) হ’তে বের হয়ে পড়লেন এবং বললেন, হে আমার প্রতিপালক! আপনি যালিম সম্প্রদায় হ’তে আমাকে রক্ষা করুন’ (ক্বাছাছ ২৮/২১)।  এখানে আরো কতিপয় আমল উল্লেখ করা হ’ল, যা আল্লাহর সন্তুষ্টি ব্যতীত অন্যের জন্য করা হ’লে শিরক হবে। যেমন-

ক. মহববতে শিরক

ভালবাসা আল্লাহর জন্যই হ’তে হবে। আল্লাহর সাথে অন্য কাউকে ভালবাসা যাবে না। আল্লাহ তা‘আলা বলেন,

 ‘আর মানবমন্ডলীর মধ্যে এরূপ কিছু লোক আছে, যারা আল্লাহর মোকাবিলায় অপরকে সমকক্ষ স্থির করে, আল্লাহকে ভালবাসার ন্যায় তারা তাদেরকে ভালবেসে থাকে এবং যারা বিশ্বাস স্থাপন করেছে আল্লাহর প্রতি তাদের ভালবাসা দৃঢ়তর’ (বাক্বারাহ ১৬৫)

মহববত একটি ইবাদত। আলোচ্য আয়াতে এই ইবাদতের কথাই বলা হয়েছে। ইবনে জারীর তাবারী (রহঃ) বলেন, ঐ সমস্ত মুশরিকরা তাদের মূর্তিদেরকে আল্লাহর ইবাদতের সাথে সমকক্ষ স্থির করে এবং তাদেরকে এমনই মহববত করে যেমনভাবে মুমিনগণ আল্লাহকে মহববত করে। অবশ্য যারা মুমিন আল্লাহর প্রতি তাদের ভালবাসা অধিকতর। অন্য কেউ বলেন, এখানে সমকক্ষ স্থির করার অর্থ হ’ল তারা তাদেরকে পাপ কাজের মাধ্যমে অনুসরণ করে।[ ত্বাবারী,]

আমরা বর্তমান সমাজের দিকে লক্ষ্য করলে দেখতে পাই যে, কবর পূজারীরা তাদের অনুসরণীয় পীরকে আল্লাহর সমকক্ষ স্থির করে। আর এজন্য তারা কবরকে সিজদা করে, কবরের কাছে যবেহ করে, মানত করে এবং কবরে শায়িত ব্যক্তির কাছে জীবনের প্রয়োজনীয় সবই চায়। এটা প্রমাণ করে যে, তারা পীরকে আল্লাহর চেয়ে বেশী ভালবাসে? এর দ্বারা আরো প্রমাণিত হয় যে, জাহিলী যুগে যেমনভাবে মুশরিকরা তাদের মূর্তিকে মহববত করত, অনুরূপভাবে বর্তমানে কবর পূজারীরা পীরদেরকে মহববত করে।

মহববত দুপ্রকার : (১) মহববত শুধুমাত্র আল্লাহর জন্যই নির্দিষ্ট, এরূপ মহববত যদি আল্লাহ ব্যতীত অন্য কাউকে করা হয় তাহ’লে তা শিরক হবে। যেমন মুশরিকরা তাদের মূর্তিকে মহববত করে এবং মুরিদরা যেমনভাবে পীরকে মহববত করে। (২) স্বভাবগত ভালবাসা, যেমন পিতা-মাতাকে ভালবাসা, সন্তানদের ভালবাসা, খানা-পিনার প্রতি ভালবাসা, স্বামী-স্ত্রী একে অপরকে ভালবাসা এবং আল্লাহর জন্য মুমিন ব্যক্তিকে আনুগত্যের ভিত্তিতে ভালবাসা ইত্যাদি। এ সকল ভালবাসা যায়েজ।[ইবনুল কায়্যেম, ]

খ. আনুগত্যে শিরক :

যে সকল বিষয়ে আল্লাহর আনুগত্য করতে হয়, সে সকল বিষয়ে অন্যের আনুগত্য করা শিরক। যেমন আল্লাহ তা‘আলা বলেন, ‘তারা আল্লাহকে ছেড়ে নিজেদের আলিম ও ধর্ম-যাজকদেরকে প্রভু বানিয়ে নিয়েছে এবং মারিয়ামের পুত্র মাসীহকেও। অথচ তাদের প্রতি শুধু এই আদেশ করা হয়েছিল যে, তারা শুধুমাত্র এক (সত্য) মা‘বূদের ইবাদত করবে যিনি ব্যতীত কোন সত্য উপাস্য নেই। তিনি তাদের অংশী স্থির করা হ’তে পবিত্র’ (তওবাহ ৩১)

এ আয়াতের তাফসীরে বলা হয়েছে যে, ঐ সমস্ত মানুষের কথা যারা আল্লাহকে বাদ দিয়ে তাদের আলেম-ওলামাকে এবং ধর্মযাজককে পাপের কাজে অনুসরণ করে। আর তারা যেটা হালাল করে সেটা হালাল হিসাবে মেনে নেয়, অথচ আল্লাহ তা‘আলা সেটা তাদের উপর হারাম করেছেন। আর তাদের আলেম-ওলামা ও ধর্মযাজকরা যেটা হারাম করে সেটা তারা হারাম হিসাবে মেনে নেয়, অথচ আল্লাহ তা‘আলা সেটা হালাল করেছেন।[জামেউল বয়ান ১১/৪১৭ পৃঃ ]

আদি বিন হাতেম (রাঃ) হ’তে বর্ণিত, তিনি রাসূল (ছাঃ)-কে এ আয়াত পড়তে শুনলেন  ‘তারা (ইহুদী ও খৃষ্টানরা) আল্লাহর পরিবর্তে তাদের ধর্মীয় নেতা ও পুরোহিতদেরকে রব হিসাবে গ্রহণ করেছিল’। তখন আমি নবী করীম (ছাঃ)-কে বললাম,

 ‘

তারা তো তাদের ইবাদত করে না’? তিনি বললেন, ‘আচ্ছা আল্লাহর হালাল ঘোষিত জিনিষকে তারা হারাম বললে, তোমরা কি তা হারাম বলে গ্রহণ কর না? আর আল্লাহর হারাম ঘোষিত জিনিষকে তারা হালাল বললে, তোমরা কি তা হালাল বলে গ্রহণ কর না? তখন আমি বললাম, জি হ্যাঁ। তিনি তখন বললেন, এটাই তাদের ইবাদত করার শামিল’।[সিলসিলা ছহীহাহ হা/৩২৯৩। ] উপরোক্ত আলোচনা থেকে সুস্পষ্টরূপে প্রমাণিত হচ্ছে যে, আল্লাহ যা হালাল করেছেন সেটাকে হারাম করা শিরক। অনুরূপ তিনি যা হারাম করেছেন সেটাকে হালাল সাব্যস্ত করাও শিরক।

গ. নিয়তে শিরক :

যেকোন কাজ আল্লাহর সন্তুষ্টি ও পরকালীন স্বার্থে হ’তে হবে। দুনিয়া লাভের উদ্দেশ্যে কোন কাজ করলে তার জন্য পরকালে কোন বিনিময় পাওয়া যাবে না। আল্লাহ তা‘আলা বলেন, ‘যারা শুধু পার্থিব জীবন ও তার জাঁকজমক কামনা করে, আমি তাদেরকে তাদের কৃতকর্মের (ফল) দুনিয়াতেই পরিপূর্ণ রূপে প্রদান করি এবং দুনিয়াতে তাদের জন্য কিছুই কম করা হয় না। এরা এমন লোক যে, তাদের জন্য আখেরাতে জাহান্নাম ছাড়া আর কিছুই নেই। আর তারা যা কিছু করেছিল তা সবই আখেরাতে অকেজো হয়ে যাবে এবং যা কিছু করছে তাও বিফল হবে’ (হূদ ১৫-১৬)

সুতরাং যারা শুধু পার্থিব জীবনের কল্যাণ কামনা করে দুনিয়াতেই তাদের কৃতকর্মের ফল পরিপূর্ণ রূপে দেওয়া হবে। আখিরাতে তাদের জন্য কিছুই থাকবে না। অনুরূপভাবে যে ব্যক্তি ছালাত, ছিয়াম, হজ্জ, যাকাত ইত্যাদি ইবাদত করে কেবল পার্থিব জীবনের জন্য, দুনিয়াতে তাকে তার ফল দেওয়া হবে। আর সে পরকালে ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হবে।

ক্বাতাদা বলেন, যে ব্যক্তির শুধুমাত্র দুনিয়া লাভ উদ্দেশ্য থাকে, দুনিয়াতে তার ফলাফল পরিপূর্ণ করে দেওয়া হবে। কিন্তু সে পরকালে লজ্জিত ও ক্ষতিগ্রস্ত হবে। আর মুমিন ব্যক্তিকে দুনিয়া ও আখেরাতে পরিপূর্ণ প্রতিদান দেওয়া হবে।[ তাফসীর ইবনে কাছীর ৪/৩২৩-২৪।]

আল্লাহ তা‘আলা আরো বলেন, ‘কেউ পার্থিব সুখ-সম্ভোগ কামনা করলে আমি যাকে যা ইচ্ছা সত্বর দিয়ে থাকি; পরে তার জন্য জাহান্নাম নির্ধারিত করি, সেখানে সে প্রবেশ করবে নিন্দিত ও অনুগ্রহ হ’তে দূরীকৃত অবস্থায়। যারা বিশ্বাসী হয়ে পরলোক কামনা করে এবং এর জন্য যথাযথ চেষ্টা করে, তাদের চেষ্টা স্বীকৃত হয়ে থাকে। তোমার প্রতিপালক তাঁর দান দ্বারা এদেরকে ও ওদেরকে সাহায্য করেন এবং তোমার প্রতিপালকের দান (কারো জন্যই) নিষিদ্ধ নয়। লক্ষ্য কর, আমি কিভাবে তাদের এক দলকে অপরের উপর শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছিলাম। পরকাল তো নিশ্চয়ই মর্যাদায় শ্রেষ্ঠ ও শ্রেষ্ঠতর’ (বনী ইসরাঈল ১৮-২১)

তিনি আরো বলেন, ‘যে আখিরাতের ফসল কামনা করে তার জন্য আমি তার ফসল বর্ধিত করে দিই এবং যে দুনিয়ার ফসল কামনা করে আমি তাকে এরই কিছু দিই, আখিরাতে তার জন্য কিছুই থাকবে না’ (শূরা ২০)

নবী করীম (ছাঃ) বলেছেন, লাঞ্ছিত হোক দীনারের গোলাম, দিরহামের গোলাম এবং শালের গোলাম, তাকে দেয়া হ’লে সন্তুষ্ট হয়, না দেয়া হ’লে অসন্তুষ্ট হয়। এরা লাঞ্ছিত হোক, অপমানিত হোক। (তাদের পায়ে) কাঁটা বিদ্ধ হ’লে তা কেউ তুলে দিবে না। ঐ ব্যক্তির জন্য সুসংবাদ, যে ঘোড়ার লাগাম ধরে জিহাদের জন্য প্রস্ত্তত রয়েছে, যার মাথার চুল উস্ক-খুসক এবং পা ধূলি মলিন। তাকে পাহারায় নিয়োজিত করলে পাহারায় থাকে। আর পিছনে পিছনে রাখলে পিছনেই থাকে। সে কারো সাক্ষাতের অনুমতি চাইলে তাকে অনুমতি দেয়া হয় না এবং কোন বিষয়ে সুফারিশ করলে, তার সুফারিশ কবুল করা হয় না’।[ বুখারী হা/২৮৮৭

1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (No Ratings Yet)
Loading...

Leave a Reply


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.